সেক্সে টেবলেট প্রয়োজন আছে না কি নেই

সেক্সে টেবলেট প্রয়োজন আছে না কি নেই
5 (100%) 1 vote

সেক্সে টেবলেট সেবন করে অনেকেই যৌন জীবনকে সুখি করতে চায়। সেক্সে টেবলেট কি সত্যিই উপকার করে! সবাই চায় তার সঙ্গীকে খুশি করার জন্য। কারণ সবার যৌন শক্তি এক রকম নয়।কারো বেশি কারো কম। এইটা হতে পারে খাদ্য তারতম্যের কারণে বা জীনগত কারণে। নারী ও পুরুষের যৌন মিলন করাকে আপনি সেক্স করা বলতে পারেন। যৌন মিলনের ইচ্ছা হবে সেক্সুয়াল চাহিদা। যৌন উত্তেজনা ও যৌন শক্তি বৃদ্ধির জন্য আপনি নানান রকম ঔষধ সেবন করতে পারেন। ভায়াগ্রার নাম তো নিশ্চয়ই শুনেছেন? এমন আরও অনেক ঔষধ রয়েছে যা পুরুষের যৌন উত্তেজনা ও যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়ক। তবে সেগুলো অবশ্যই সেবন করতে হবে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী। অসাধু ক্যানভাসারদের খপ্পরে পড়ে কিংবা হারবাল মেডিকেল সেন্টারের খপ্পরে পড়ে আজেবাজে হারবাল ঔষধ সেবন করতে যাবেন না কখনোই। এতে লাভ তো হবেই না, উল্টো মারাত্মক ক্ষতি হবে স্বাস্থ্যের! অনেকেই আছেন যারা সেক্সে টেবলেট সেবন করে যৌন শক্তি বাড়ানোর জন্যে। সেই সমস্ত ব্যক্তিদের জন্য একটি পরামর্শ সেক্স বাড়ানোর জন্য যৌন শক্তি বর্ধক ট্যাবলেট খাবেন না। এই যৌন শক্তি বাড়াবার ঔষধ পুরুষ কে ধ্বজভংগ রোগের দিকে ঠেলে দেয়, অনেক ক্ষেত্রে জীবন হুমকির মুখে নিয়ে যায়।

সেক্সে টেবলেট

সেক্সে টেবলেট কি সত্যিই প্রয়োজন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

আমাদের দেশের কিছু হারবাল প্রতিষ্ঠান তরুণ যুবকদের দুর্বল মানসিকতার সুযোগ নিয়ে নানা কৌশলে বিজ্ঞাপনের ছটায় বিভ্রান্ত করে তাদের যৌন রোগী বানিয়ে তুলছে। ক্যাবল নেটওয়ার্কদের বাণিজ্যিক ভিডিও চ্যানেলের মাধ্যমেও ভুঁইফোড় কথিত নাম সর্বস্ব হারবাল মেডিক্যাল গুলোর অশ্লীল চটকদার বিজ্ঞাপনে যে কোন ভদ্র রুচিশীল দর্শকও এখন অতিষ্ঠ। অথচ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা পর্যন্ত বলছেন যৌন উত্তেজক এই হারবাল ঔষধ গুলি এক সময় পুরুষদের যৌন ক্ষমতা অক্ষম করে তুলে। আমি সব হারবাল ঔষধেরই দোষ দিচ্ছি না। এখানে শুধু যৌন উত্তেজক ক্ষতিকর ঔষধের কথা বলা হচ্ছে যে গুলো তরুণ যুবকরা চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই বিজ্ঞাপনের ছটায় বিভ্রান্ত হয়ে বা শখের বসে কিনে খাচ্ছে প্রতিনিয়ত। আর ক্ষনিকের আনন্দ লাভ করতে গিয়ে তারা নিজেরাই নিজেদের ধ্বংস ডেকে আনছে। অথচ এগুলো খাওয়ার কোনো যৌক্তিকতাই নেই। এখন কথা হলো বিবাহিত পুরুষদের যৌন দুর্বলতায় আদৌ কি কোনো ঔষধের প্রয়োজন আছে ? এক কথায় উত্তর হলো – না। স্বাভাবিক অবস্থায় সেক্সে টেবলেট খাওয়ার প্রয়োজন নাই। অর্থাৎ লিঙ্গ উত্থান জনিত কোনো শারীরিক সমস্যা অথবা অন্য কোনো যৌন রোগের কারণে যদি আপনার যৌন দুর্বলতার সৃষ্টি হয়ে থাকে তাহলে সেই রোগের চিকিৎসা করাতে হবে। তারপর যৌন সমস্যা হলে বিষয়টি দেখতে হবে। মূল কথা হলো বিবাহিত পুরুষদের যৌন দুর্বলতায় কোনো ঔষধের প্রয়োজন নাই। আপনারা হয়ত প্রশ্ন করতে পারেন তাহলে যৌন দুর্বলতার সৃষ্টি হলে এটা সারবে কিভাবে ? একটা বিষয় চিন্তা করুন পুরুষের যৌন ক্ষমতাটা তার ইচ্ছা বা অনিচ্ছার উপর নির্ভর করে না। এটা সরাসরি নির্ভর করে তার শারীরিক সক্ষমতার উপর। তাই আপনাকে চিন্তা করতে হবে কি করলে আপনি সবসময় শারীরিক ভাবে ফিট থাকবেন। কারণ যৌনতা আপনার শরীরেরই একটা অংশ। তাই নিয়মিত ব্যায়াম, পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ, নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপনের মাধ্যমে আপনি যৌনতায় ফিট থাকতে পারেন। তার জন্য ক্ষতিকর হারবাল ঔষধের প্রয়োজন নেই। আপনি যদি সখের বসে নিয়মিত সেক্সে টেবলেট খেতে থাকেন তা হলে একসময় দেখবেন আপনি এতে অভ্যাস্ত হয়ে পড়েছেন আর এমনটিই হচ্ছে প্রতিনিয়ত এবং প্রতিবার ঐসব ঔষধ খাওয়া ব্যতীত আপনি আর সহবাস করতে পারছেন না। শুধু তাই নয় আপনার শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গসমূহও নানা প্রকার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় আক্রান্ত হতে থাকবে। আস্তে আস্তে ঐ অবস্থায় আর কোনো যৌন শক্তির ঔষধই কাজ করবে না। এবার আপনিই সিদ্ধান্ত নিন, আপনি কি ঐসব ক্ষতিকর হারবাল ঔষধ খেয়ে আপনার যৌন জীবন বিপদে ফেলবেন নাকি নিয়ম তান্ত্রিক জীবন যাপনের মাধ্যমে আনন্দময় সুখী যৌন জীবন উপভোগ করবেন। কারণ যে কোনো ঔষধই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া খাওয়া বিপদ জনক। এবার আসুন বিবাহিত পুরুষদের যৌন দুর্বলতায় কি কি করা প্রয়োজন সে দিকে যাই।

বিবাহিত জীবনে পুরুষদের যৌন দুর্বলতা একেবারেই একটা সাধারণ ব্যাপার । আপনি যদি এই বিষয়ে একটু সচেতন থাকেন তাহলে এ সংক্রান্ত কোনো সমস্যাই হওয়ার কথা নয়। আপাতত আজকে কিছু খাবার-দাবার সম্পর্কে বলব যে গুলো আপনার খাবার মেনুতে নিয়মিত রাখলে যৌন দুর্বলতার প্রশ্নই উঠবে না। তবে আপনার যদি অন্য আরো কোনো শারীরিক সমস্যা থেকে থাকে যার জন্য আপনি যৌন সমস্যায় ভুগছেন তাহলে অবশ্যই চিকিৎসা নিবেন। বিবাহিত জীবনে যৌনতায় সব সময় ফিট থাকতে সেক্সে টেবলেট সেবন না করে নিচের খাদ্যগুলি নিয়মিত গ্রহণ করুন।

ডিম – খাদ্য হিসাবে ডিম আপনার যৌন সামর্থ্য বাড়াতে ব্যাপক ভূমিকা রাখে। ডিমে প্রচুর পরিমাণে বি-ফাইভ, বি-সিক্স থাকে। বি-ফাইভ এবং বি-সিক্স হরমোন লেভেলের ভারসাম্য রক্ষা করে এবং ক্লান্তি দূর করে। তাই প্রতিদিন ডিম খাওয়ার চেষ্টা করুন।

দুধ – দুধ হলো অসাধারণ একটি যৌন শক্তি বর্ধক খাদ্য। বিশেষ করে ছাগলের দুধ পুরুষদের দ্রুত যৌনশক্তি যোগায়। এতে রয়েছে বেশি পরিমাণ প্রাণিজ ফ্যাট যা একটি প্রাকৃতিক খাদ্য এবং পুরুষদের যৌন জীবনের উন্নতি ঘটিয়ে থাকে। আপনি যদি শরীরে সেক্স হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে নিয়মিত দুধ পান করুন। ভালো ফল পেতে দুধ এবং খোরমা **খেজুর** একসাথে খান নিয়মিত।

মধু – মধুর গুনের কথা মনে হয় আমার চেয়ে আপনারাই ভালো জানেন। আপনাকে শারীরিক ভাবে এবং যৌনতায় ফিট রাখতে মধুর রয়েছে জাদুকরী ভুমিকা। মধু হাজারো রকম ফুল ও দানার নির্যাস থেকে তৈরি। দুনিয়ার সকল গবেষকরা একত্র হয়ে এমন নির্যাস প্রস্তুত করতে চাইলেও কখনো পারবে না। এটা শুধু মহান আল্লাহ পাকেরই দয়া যে, তিনি বান্দার জন্য এমন উত্তম ও বিশেষ উপকারী খাবার দিয়েছেন। ভালো ফল পেতে কালোজিরা এবং মধু একত্রে খান।

কলিজা – পুরুষের যৌন জীবনে খাদ্য হিসেবে কলিজারও অনেক প্রভাব রয়েছে। কারণ, কলিজায় প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক থাকে। আর এই জিঙ্ক শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বেশি পরিমাণে রাখে। যথেষ্ট পরিমাণ জিঙ্ক শরীরে না থাকলে পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে হরমোন নিঃসৃত হয় না। পিটুইটারি গ্রন্থি থেকে যে হরমোন নিঃসৃত হয় তা টেস্টোস্টেরন তৈরি হওয়াতে সাহায্য করে। তাছাড়া জিঙ্ক এর কারণে আরোমেটেস এনজাইম নিঃসৃত হয়। এই এনজাইমটি অতিরিক্ত টেস্টোস্টেরোনকে এস্ট্রোজেনে পরিণত হতে সাহায্য করে। এস্ট্রোজেনও আপনার যৌনতার জন্য প্রয়োজনীয় একটি হরমোন। তাই মাঝে মাঝে কলিজা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

জয়ফল – জয়ফল থেকে এক ধরনের কামোদ্দীপক যৌগ নিঃসৃত হয়। সাধারণভাবে এই যৌগটি স্নায়ুর কোষ উদ্দীপিত করে এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। ফলে পুরুষের যৌন ইচ্ছা বৃদ্ধি পায়। কফির সাথে মিশিয়েও আপনি জয়ফল খেতে পারেন, বলে রাখা প্রয়োজন পুরুষের যৌন উদ্দীপনা সৃষ্টি করতে কফির ভালো ভুমিকা রয়েছে। তাই এক্ষেত্রে দুইটির কাজ একত্রে পাওয়া সম্ভব।

রসুন – রসুন নিস্তেজ লোকদের মধ্যে যৌন ক্ষমতা সৃষ্টি করে, বীর্য বৃদ্ধি করে, বীর্য গাঢ় করে, পাকস্থলী ও গ্রন্থির ব্যথার উপকার সাধন করে। এই রসুনকে আবে হায়াত বলেও আখ্যা দেয়া হয়। অন্যান্য উপকারের সাথে সাথে রসুন পুরুষদের যৌন ক্ষমতা বাড়াতে অসাধারণ ভুমিকা পালন করে। তাই দৈনিক অন্তত ২/৩ কোয়া রসুন অন্তর্ভূক্ত করুন।

চীনা বাদাম – চীনা বাদামে প্রচুর জিঙ্ক থাকে। এই জিঙ্ক শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ায় এবং শক্তিশালী শুক্রাণু তৈরি করে। জিঙ্ক কম থাকলে শরীরে শতকরা ৩০% কম বীর্য তৈরি হয়। যারা খাদ্যের মাধ্যমে শরীরে কম জিঙ্ক গ্রহণ করে তাদের বীর্য এবং টেস্টোস্টেরনের ঘনত্ব দুটিই কমে যায়। তাই মাঝে মাঝে চীনা বাদাম খেতে চেষ্টা করুন।

কলা – কলাতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি, ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ব্রুমাইল্ড এনজাইম। এইসব উপাদান পুরুষদের যৌন আসক্তি বাড়াতে দারুন কার্যকরী। তাই কলাকেও বাদ রাখবেন না। কলা খান নিয়মিত।

উপরে যতগুলো খাদ্যের কথা বলা হয়েছে তাদের সবগুলিই হলো প্রাকৃতিক অর্থাৎ এই গুলো গ্রহণে কোন প্রকার ক্ষতির অবকাশ নেই। আপনি যদি সবগুলো গ্রহণ করতে না পারেন অন্তত দুধ, ডিম এবং মধু,কালোজিরা গ্রহণ করুন নিয়মিত। তাতেও আপনি যৌন দুর্বলতায় ভুগবেন না। শখের বসে সেক্সে টেবলেট কিনে খাবেন না।

সেক্সে টেবলেট সেবনের পরিনাম

মধুময় দাম্পত্য জীবনের জন্য বা সফল যৌন জীবন উপভোগ করার জন্য আমাদের সকলেরই যৌন বিষয়ে জ্ঞান থাকা প্রয়োজন। বিশেষ করে পুরুষদের।কারন কিছু ভুল আপনার দাম্পত্য জীবনকে ক্ষতিগ্রস্থ করে দিতে পারে, আর পুরুষরাই এই ধরনের মারাত্মক কিছু ভুল করে থাকেন। অনেক পুরুষরা সখের বসে বা অধিকক্ষণ সহবাস করতে সেক্সে টেবলেট খেয়ে থাকেন। যারা বিজ্ঞাপনের প্ররোচনায় পড়ে হারবাল, কবিরাজি বা ভেষজ নামধারী যৌন উত্তেজক ঔষধ, ইয়াবা অথবা ইন্ডিয়ান ট্যাবলেট সেবন করেন, তাদের জন্য একটি পরামর্শ – সেক্স বাড়ানো জন্য সেক্সে টেবলেট বা অন্য কোন ঔষধ বা ড্রিংক খাবেন না।

বর্তমানে বিভিন্ন ঠান্ডা কোমল পানীয় দোকানে যৌন উত্তেজনা ধরে রাখতে বিভিন্ন নামে বেনামে ড্রিংক পাওয়া যায়।এইসব ড্রিংকে সরকারী কোন অনুমোদন নাই। এই জাতীয় যৌন উত্তেজক ড্রিংক বা ঔষধ একসময় পুরুষকে ধ্বজভংগ রোগের দিকে ঠেলে দেয় আবার অনেক ক্ষেত্রে মৃত্যুর দিকেও ঠেলে দেয়। আমরা পত্রিকায় এমনও খবর দেখেছি যে সেক্সে টেবলেট খেয়ে বাসর রাতে যুবকের মৃত্যু হয়েছে। আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না যে যৌন শক্তি বাড়ানো জন্য কোন ঔষধ সেবনের প্রয়োজন নেই। ফুটপাত থেকে যৌন শক্তি বর্ধক ট্যাবলেট ক্রয় করা থেকে বিরত থাকুন। শুনলে হয়তো আপনার গা শিউরে উঠবে যে – কি ক্ষতিকর উপাদান এতে মেশানো হয়ে থাকে ! অনেক অসাধু হারবাল ঔষধ বিক্রেতা তাদের ঔষধে উত্তেজক এলোপ্যাথিক ঔষধ পাউডার করে মিশিয়ে থাকে (যেগুলি ডাক্তাররা ক্ষেত্র বিশেষে কিছু দিনের জন্য রোগীদের দিয়ে থাকেন) আবার কেউ কেউ ইয়াবা জাতীয় মাদকদ্রব্যও মিশিয়ে থাকে। এইসব হারবাল নামধারী ঔষধ গুলির ক্রিয়া কাল ২/৩ ঘন্টার বেশি থাকে না আর এই গুলির মধ্যে যৌন দুর্বলতা দূর করার মত স্থায়ী কোন গুনও নেই। সবচেয়ে খারাপ দিক হলো যারা এই উত্তেজক ঔষধগুলি নিয়মিত সেবন করেন, তারা খুব সহজেই এর উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন এবং উত্তেজক ঔষধ সেবন করা ছাড়া যৌন মিলন বা সহবাস করতে পারেন না। আর দীর্ঘদিন যাবৎ চালিয়ে যাবার কারণে এক সময় এই ঔষধ গুলির মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব গুলি প্রকাশ পেতে থাকে। কোন কোন পুরুষ পুরাপুরি যৌন ক্ষমতায় হারিয়ে ফেলে।

আমাদের একটি বিষয় অবশ্যই মনে রাখতে হবে – সুস্বাস্থ হল এক অমূল্য সম্পদ। অসচেতন বা ভুলের বসে এই সম্পদকে হারাবেন না। তাই যৌনতা বা যৌন সংক্রান্ত যে কোন সমস্যায় কোন প্রকার সংকোচ না করে রেজিষ্টার্ড চিকিৎকের পরামর্শ নিন। অযথা সখের বসে বা টেস্ট করতে গিয়ে অথবা লোভের বসে সেক্সে টেবলেট খেয়ে খেয়ে আপনার যৌন জীবন বিপর্যস্থ করবেন না। আপনার সমস্যা সমূহ পর্যবেক্ষণ করে রেজিষ্টার্ড চিকিৎসকই বুঝবেন আপনার জন্য কি প্রয়োজন।

240 total views, 1 views today

এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে

About আলোকিত আধারে

কেউ হয়ত জানতেই চাইবেনা কোথায় বাঁধা ছিল এ হৃদয়। শুধু রচিত হবে আমার এপিটাফ - মৃত্যু হবে আমার সকল আবেগের, ভালবাসার, যন্ত্রণার।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন