বন্ধু মানে কি – ভালো বন্ধুর যেসব গুণ থাকা চাই

বন্ধু মানে কি – ভালো বন্ধুর যেসব গুণ থাকা চাই
4.3 (86.67%) 9 votes

বন্ধু মানে কি তা শুধু একটি কথায়,একটি গানে কিংবা শুধু একটি কবিতায় সংজ্ঞায়িত করা সম্ভব না। বন্ধুত্বের গভীরতা প্রকাশ সম্ভব হবেনা একটি মাত্র গল্পে অথবা উপন্যাসে। বন্ধুত্ব নিয়ে লেখা হয়েছে কতো না কবিতা-গল্প-উপন্যাস! বন্ধু মানে কি সহজ কথায় বলা যায় – বন্ধু হলো জীবনের একটা অবিছেদ্দ অংশ। যে অংশ জুরে রয়েছে হাসি, কান্না,মারামারি,আড্ডা ইত্যাদি। বন্ধু জীবনে অক্সিজেনের মতো। যে কথা কাউকে বলা যায় না, সেই গোপন কথার ঝাঁপি নিশ্চিন্তে মন খুলে বলা যায় বন্ধুর সামনে। বলা যায় ভালোবাসার কথা,বেদনার কথা।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

বন্ধু মানেই দুঃখ গুলি
করতে হবে শেয়ার,
বন্ধু মানেই যখন তখন
করতে হবে কেয়ার।

বন্ধু কখনো শিক্ষক, কখনো সকল দুষ্টুমীর একমাত্র সঙ্গী। বন্ধু মানে বাঁধ ভাঙা উচ্ছাস আর ছেলেমানুষী হুল্লোড়। সব ধরণের মানবিকতা বোধ ছাপিয়ে বন্ধুত্বের আন্তরিকতা জীবনের চলার পথে অন্যতম সম্পদ।

বন্ধু মানে কি

বন্ধু মানে কি?

বন্ধু মানে কি – বন্ধু এমন একজন মানুষ, যে কি না কোনো প্রকার ধর্মীয়, আইনগত ও সামাজিক এগ্রিমেন্ট ছাড়াই পাশাপাশি পথ চলতে চায়।
বন্ধু মানে কি -যে মানুষটা সবসময়ই অপর পাশের মানুষটিকে বুঝতে চায়।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটার সাথে মনের কথা বিশ্বাসের সাথে শেয়ার করা যায়।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটা সবসময় অনুপ্রেরণা যোগায় জীবনের পথে সামনে এগিয়ে চলার জন্যে।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটা তার আপন জনের অনেক অন্যায় আবদার হাসিমুখে মেনে নেয়।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটা কখনো এটা হিসেব করে না, আমি আমার অপর পাশের আপন জনের কাছ থেকে কতটুকু পেলাম। বরং এটাই চিন্তা করে যে, আমি কতটুকু দিলাম।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটা তার আপন জনের অন্যায় ঘটতে দেখলে তাকে শাসন করে, সাময়িক শাস্তি দেয়, কিন্তু তাকে ফেলে রেখে চলে যায় না। বন্ধুর ভুল মমতা দিয়ে শনাক্ত করে ও সেই ভুল সংশোধনে সাহায্য করে।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটা সবসময় এই অনুভূতিকে আরও জাগ্রত করে যে, “বন্ধু! তুমি যেমন, আমি তোমাকে সেভাবেই ভালবাসি। তোমাকে খুব বেশি বদলাতে হবে না”।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটাকে তার  ভালবাসা প্রকাশের জন্যে প্রতি মুহূর্তে “আমি তোমাকে ভালবাসি”- বলতে হয় না।
বন্ধু মানে কি – যে মানুষটার সাথে পাশাপাশি পথ চললে মনে হয়, “আমি পৃথিবীটা জয় করে ফেলবো”।
বন্ধু মানে কি – সর্বোপরি, যে মানুষটা কোনো প্রকার শর্ত ছাড়াই অপর পাশের মানুষটিকে ভালবাসে।

 

কেউ নি:সঙ্গ থাকতে চায় না। একজন বন্ধুই পারে নি:সঙ্গতা দূর করতে। দু:খের সময়ে, আনন্দের সময়ে, কথা বলার জন্য, অভিজ্ঞতা শেয়ার করার এমনতর সব ক্ষেত্রেই বন্ধুর প্রয়োজন হয়। একজন সত্যিকারের বন্ধুর বেশ কিছু গুণাবলী থাকতে হয়।

 সততা – বন্ধুত্ব টিকিয়ে রাখার সর্বোৎকৃষ্ট উপায় হল সততা। একজন সত্যিকারের বন্ধু সবসময় সত্য কথা বলে এবং কখনোই মিথ্যা বলেনা। সত্যবাদিতা অনেক সময় কষ্ট দিলেও বন্ধুত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য সত্য বলা অত্যাবশ্যক। বন্ধুর কাছে কোন বিছুই গোপন করবেননা। আপনাকে বা আপনার বন্ধুকে কষ্ট দিতে পারে এমন কথাও শেয়ার করবেন। কারণ আপনার বন্ধু যদি জানতে পারে আপনি তার কাছ থেকে কোন কিছু গোপন করছেন তাহলে বিশ্বস্ততা নষ্ট হতে পারে। সততাই বন্ধুত্বের প্রধান ভিত্তি।

উৎকৃষ্ট শ্রোতা – সকল সমস্যা ভাগাভাগি করে নেয়ার জন্য বন্ধুর প্রয়োজন। আপনার সমস্যাগুলো আপনি সবার সাথে শেয়ার করতে চাইবেন না। আর, একজন সত্যিকারের বন্ধু আপনার সমস্যাগুলো শুনবেন এবং আপনাকে কিছু কার্যকরী পরামর্শ দিবেন। আপনার কষ্টের জীবন বা আপনার দাম্পত্য জীবনের সমস্যাগুলো ও সে শুনবে এবং আপনার ও আপনার সঙ্গীর সম্পর্কের মধ্যে কোনরকম নাক না গলিয়েই তাঁর মতামত দিবে।

বিশ্বস্ততা – সব বন্ধুত্বেই বিশ্বস্ততা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বন্ধুকে আপনি সব কথাই বলবেন; এমনকি খুবই গোপনীয় বিষয়গুলোও। কিন্তু আপনার বন্ধু এমন হবে সে আপনার গোপন কথাগুলো সবসময় গোপন রাখবে।

বন্ধু মানে কি

বন্ধু মানে কি

শ্রদ্ধা – বিভিন্ন ব্যক্তির বিভিন্ন রকম দৃষ্টিভঙ্গি থাকে। আর, বন্ধুর কাছে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে সে আপনার মতামত কে শ্রদ্ধা করছে। আপনি ও তার মতকে শ্রদ্ধা করছেন। তবে ব্যাপারটা এমন নয় যে সে সকল বিষয়ে আপনার সাথে একমত হবে। কখনো কখনো সে আপনার মতের বিরোধিতা করতে পারে; এমনকি আপনাকে মত পরিবর্তন করতেও বলতে পারে।

হাস্যরস – বন্ধু সবসময় আপনার সমস্যা নিয়েই থাকবে এমন নয়। সে আপনার সাথে বিভিন্ন সময় মজা করবে। ভাল বন্ধু এমন একজন মানুষ যে কিনা আপনাকে আনন্দ ও দিবে নানাভাবে। আর সবার জীবনেই হাসি-তামাশার জন্য কিছু সময় থাকে। এই ব্যাপারটাও বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়।

দুঃসময়ে পাশে থাকা – এক বন্ধুর বিপদে চিন্তা-ভাবনা ছাড়াই অন্য বন্ধুর সাড়া দেওয়াই হচ্ছে প্রকৃত বন্ধুত্বের পরিচয়। প্রয়োজনে সময়ে অসময়ে বন্ধুর বিপদে তাকে সাহায্য করা। যে বন্ধুর জন্য আপনি এমন করতে পারবেন এবং যে বন্ধু আপনার পাশে সর্বদা থাকতে পারবে, সে-ই আপনার সত্যিকার বন্ধু।

বন্ধুত্বের ইচ্ছেকে সম্মান জানানো – বন্ধুর ইচ্ছাকে সবসময় সম্মান জানানো উচিত। যদি তা পছন্দ না হয়, তবে সরাসরি বলুন। সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকা অবশ্যই জরুরি। সমালোচনা করুন, তবে কটুক্তি নয়। তবে সমালোচনার ভাষা ব্যবহারে সচেতন হওয়ায় খুবই প্রয়োজন। একবার ভুল হলে তাকে ছুঁড়ে না ফেলে তা শুধরে নেওয়াই প্রকৃত বন্ধুর দায়িত্ব। বন্ধুর প্রতি বিনয়ী হওয়া বন্ধুত্বের প্রধান হাতিয়ার।

সর্বোৎকৃষ্ট সাথী – আপনার বন্ধুর সাথে আপনাকে অনেক কাজ করতে হবে। এমন হতে পারে যে আপনি বন্ধুর সাথে মাঝে মাঝে মুভি দেখতে যান বা কনসার্টে গান শুনতে যান। আবার, বন্ধুর সাথে কোথাও বেড়াতে যেতে পারেন। সেখানে পড়তে পারেন কোন অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতিতে। তখন হয়তো আপনার ও আপনার বন্ধুর ধৈর্য ধারণ করা প্রয়োজনীয় হতে পারে।

ক্ষমাশীলতা – ক্ষমাশীলতা একজন সত্যিকারের বন্ধুর গুরুত্বপূর্ণ গুণাবলীর একটি। আর, যখন আপনার ও আপনার বন্ধুর মধ্যে কোন সমস্যা সৃষ্টি হবে তখন এ গুণটির চর্চা আরও গুরুত্বপূর্ণ। সকলেই ভুল করে থাকে। আপনার বন্ধুটি আপনাকে মাঝে মাঝে এমন কোন কথা বলতে পারেন যার অর্থ আপনি নাও বুঝতে পারেন বা ভুল বুঝতে পারেন। তাই ক্ষমা করার অভ্যাস থাকলে এরকম সামান্য সামান্য ভুল বোঝাবুঝি বা ঝগড়ার কারণে নিজের সবচেয়ে ভাল বন্ধুটাকে হারাতে হবে না।

উৎসাহ-উদ্দীপনা – জীবনে অনেক খারাপ সময় আসে যখন মানুষ বিষণ্নতায় ভুগে থাকে। একজন ভাল বন্ধু এসময় তার বন্ধুকে নানাভাবে আনন্দে রাখতে চেষ্টা করে। একজন ভাল বন্ধুর উৎসাহ দেয়ার ক্ষমতা থাকবে, যাতে করে দু:খের দিনগুলোতে তার বন্ধুটি সহজে কাটিয়ে উঠতে পারে।

যত্নবান – একজন সত্যিকারের বন্ধু ভাল ও খারাপ উভয় সময়েই আপনার প্রতি যত্নবান হবেন। যখন আপনি অসুস্থ্য থাকবেন তখন যতবার সম্ভব সে আপনাকে দেখতে যাবে। যেকোন পরিস্থিতিতে আপনার সাথে থাকবে এবং আপনাকে লক্ষ্যে পৌঁছে দেয়ার জন্য সর্বাত্মক সহায়তা করবে।

যে কথা কাউকে বলা যায় না, তার আগল অকপটে খুলে দেয়া যায় বন্ধুর সামনে। মনের বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাস, আবেগ আর ছেলেমানুষী হুল্লোড়ের অপর নামই তো বন্ধুত্ব। আমার মনে হয়,বন্ধু মানে কি (What does a friend mean) তা আসলে বোঝানো সম্ভব নয়। যাদের বন্ধু নেই তারা বিষর্ণতায় ভোগে, একাকিত্বের কষ্ট তাকে গ্রাস করে নেয়। এই জীবন থেকে পালিয়ে ফিরতে অনেকেই নানান পথ খোঁজে। কিন্তু যে পথটি আপনার জন্য অপেক্ষা করছে এটা শুধু জানে আপনার কাছের বন্ধুটিই। তাকেই বলেই দেখুন একবার আপনার বিষর্ণতার কথা, একাকিত্বের কথা। বন্ধুটিই আপনাকে ঘর থেকে টেনে বের করে নিয়ে যাবে খোলা মাঠে। সবুজ ঘাস সেখানে। ছন্দহীন জীবনে ছন্দ, নিরানন্দ জীবনে আনন্দের জোয়ার যোগ করতে বন্ধুর জুড়ি নেই।

580 total views, 2 views today

এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে

আপনার মন্তব্য লিখুন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন