নুতান নামের মেয়েটিকে লেখা একটি প্রেমের চিঠি

নুতান নামের মেয়েটিকে লেখা একটি প্রেমের চিঠি
5 (100%) 3 votes

নুতান নামের একটি মেয়েকে ভালোবাসতাম আমরা দুইজন। দুইজন মানে আমি আর আমার বন্ধু। নুতান কে দুইজনই পছন্দ করতাম। আমরা নিজেদের মধ্যেও অনেক কথা বলতাম কিভাবে মেয়েটার সাথে ভাব করব। দুই জনেই সমান তালে চেষ্টা চালিয়ে গেলাম। তারপর একদিন নুতান নামের মেয়েটির সাথে আমার বন্ধু রিমনের প্রেম হয়ে গেলো,শুধু মাত্র একটি চিঠির কারণে। কেমন ছিল সেই চিঠিটি তাহলে দেখে নিন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

নুতান

হয়তোবা প্রিয়তমা,
নুতান আমার হৃদয়ের সব ভালবাসা তোমাকে উজার করে দিলাম। আজ তোমাকে লেখা আমার দ্বিতীয় প্রেমের চিঠি । প্রথম চিঠিটা তোমাকে পাঠানো হয়নি তবে দ্বিতীয় চিঠিটা আজ পাঠালাম।আমাকে পাগল বলবে বা ছাগল বলবে জানিনা, আমি তোমার জন্য ছাগল, পাগল, গরু, গাধা সব হতে রাজি আছি।

প্রিয়তমা,
আমি অপেক্ষা করছি তোমার জন্য। নুতান যদি তুমি আমায় ভালোবাসো, আমিও তোমায় সারা আকাশ ভেঙ্গে ভালোবাসা দেবো। আমি তোমায় ভালোবাসবো চোখে চোখ রেখে। ভালোবাসবো তোমায় আঙুলের স্পর্শে। সব দুর্নিবার দূরত্বের কষ্ট আমি উড়িয়ে দিবো বুকে চেপে ধরে। তোমার অস্থিরতা আমি শান্ত করবো। তোমার সব অতৃপ্ততা আমি ভালোবাসার আগুনে পুড়িয়ে দিবো। তোমার অভিমানে জল আমি ঠোঁটে ছুয়ে মুছে দিবো। তোমায় ভালোবাসবো আমি সঙ্গীতের মূর্ছনায়। আমি বুঝে নিবো তোমার সব সুক্ষতা। আমি চিনে নিবো তোমার সব চাতুর্য। আমি বাস্তব করবো তোমার সব কল্পনা। মিটাবো তোমার সব উত্তেজনা। তোমার সব শীতলতা আমি উষ্ণ করে দিবো। তোমার আসক্তিতে আমি সবসময় স্পর্শ দিবো। তুমি খুশীতে হাসবে আমার কৌশলে। তোমায় কষ্ট কখনো খুঁজে পাবেনা। তুমি যদি অত্যাচারের তীব্রতা আর ঘৃনায় সুখ খুঁজতে চাও,তবে বৃষ্টির জল দেখতে দেখতে তোমায় নিয়ে আমি খেলবো। খেলতে খেলতে তোমায় অসহায় করবে না পাওয়ার যন্ত্রণা। তোমায় একা বইতে দিবো বিরহ। দ্রোহের যন্ত্রণায় কেমন লাল হয়ে যাও তুমি, আমি চেয়ে চেয়ে দেখবো। ক্রোধে বের হয়ে আসা তোমার কান্না আমি হাসিমুখে উপভোগ করবো। যদি হেরে যাও নিজের কাছে, আত্মসমর্পণ করে ফেলো, তবে ভালোবাসা জড়িয়ে দেবো তোমার পরতে পরতে। তোমার সব চিন্তা-ভাবনা- ইচ্ছা-কাজের আমি স্বীকৃতি দিবো। নুতান তোমার গোপন প্রকাশ্য সব রুচিতে আমি পাশে থাকবো। তোমায় ঘেরা প্রকৃতির সব অসমতায়, দুঃসংবাদে, সুসংবাদে, শোকে, মৃত্যুতে, রোগে ব্যর্থতায়, বিচ্ছিন্নতায় আমি ছায়ার মতো থাকবো, তোমায় সঙ্গ দিবো সর্বদা।

নুতান আমি জানিনা খুব করে আকাশ কালো হয়ে ঝুম বৃষ্টি নামলে আমার কথা তোমার মনে পড়ে কিনা। এমনকি ভুলতে পারিনি তোমাকে একটিবার দেখার জন্য সাড়ে তিন ঘন্টা বৃষ্টিতে ভিজে ভেজা চোখে ফিরে আসার ব্যর্থ গল্পটাও। শুধু আর বৃষ্টিতে ভিজতে পারিনা। বৃষ্টির প্রতিটা ফোঁটা তীরের ফলার মতো আমার শরীরে আঘাত করে, চোখের সামনে ছায়াছবির মতো ভাসতে থাকে বৃষ্টিতে ভিজে চুপসে যাওয়া এক কিশোরের থরথর মুখ! আমার কাছে বৃষ্টি মানে উপেক্ষা। আমার কাছে বৃষ্টি মানে উদাসীনতা। আমার কাছে বৃষ্টি মানে স্বপ্নভঙ্গের বেদনা! আমাদের শহরে ঝুম বৃষ্টি নামলে ছেলেমেয়েরা দল বেঁধে রাস্তায় নেমে আসে! বৃষ্টি বিলাস করে..বৃষ্টিতে ভালোবাসা ছড়ায়! আমি কেবল মুগ্ধ দৃষ্টিতে দেখি। ইদানিং বৃষ্টি হলেই ফেসবুকে রোমান্টিকতার ঢল নামে। একের পর আসতে থাকে বৃষ্টিস্নাত উচ্ছ্বাসময় পোস্ট । আমি প্রতিটা পোস্ট খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পড়ি। বড় ভালো লাগে মানুষের বিশুদ্ধ আবেগ। আর খুব ইচ্ছে করে আবারো বৃষ্টিতে ভিজি! পারিনা…বড় ভয় হয়! স্বপ্নভঙ্গের ভয়! প্রায়ই ভাবি একদিন ঘুম ভেঙে দেখবো বুকের মধ্যে আর কোন ভয় নেই! সেইদিন খুব করে মেঘ করবে…ফুল হয়ে ফুটবে বৃষ্টি..বিদ্যুৎ চমকে নামবে ভালোবাসা!! কিন্তু কবে? নুতান সেই দিন কব আসবে?

নুতান আমি জানি তুমি আমাকে ভালোবাস না। নুতান আমি যদি রাতের আকাশের জ্যোস্না হতাম, তাহলে কি পারতে আমায় না দেখে থাকতে ? আমি যদি অন্ধকারের মাঝে ছোট্ট প্রদীপ হতাম, তাহলে কি পারতে আমায় দূরে সরিয়ে রাখতে ? আমি যদি দগ্ধ দুপুরের দমকা হাওয়া হতাম, তাহলে কি পারতে আমায় উপেক্ষা করতে ? আমি যদি তোমার ঠোটের উপর গড়িয়ে পরা দু’ফোটা বৃষ্টির জল হতাম, তাহলে কি পারতে আমায় ভালোবাসি না বলতে ? জানি এর কোনো উত্তরই তোমার কাছে নেই…..!

165 total views, 1 views today

এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে

About আলোকিত আধারে

কেউ হয়ত জানতেই চাইবেনা কোথায় বাঁধা ছিল এ হৃদয়। শুধু রচিত হবে আমার এপিটাফ - মৃত্যু হবে আমার সকল আবেগের, ভালবাসার, যন্ত্রণার।

আপনার মন্তব্য লিখুন

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন